রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শেষকৃত্য আজ

ব্রিটেনের মহারানি হিসেবে পরিচিত রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শেষকৃত্য আজ। পৃথিবী থেকে আজ তাকে চিরবিদায় জানাবেন তার স্বজন, শুভানুধ্যায়ীসহ বিশ্বনেতারা। স্বামীর পাশেই শায়িত করা হবে তার মরদেহ। দীর্ঘদিন ব্রিটিশ সিংহাসনে দায়িত্ব পালনকারী রানি কতটা যে জনপ্রিয়, তা তাকে শ্রদ্ধা জানাতে সাধারণ মানুষের ঢল দেখলেই বোঝা যায়। প্রচণ্ড ঠান্ডার মধ্যেও রাস্তায় ১৭ ঘণ্টা অপেক্ষা করে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন তার ভক্তরা।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি আলবানিজি, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোসহ অনেক নেতা রবিবারের মধ্যেই লন্ডনে পৌঁছে যান।

শেষকৃত্যে কমনওয়েলথের অন্যতম নেতৃস্থানীয় দেশ ভারতের প্রতিনিধিত্ব করবেন রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু। যোগ দেবেন নিউজিল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালির রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধানসহ বিশ্বের ৫০০ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। ইউরোপের রাজপরিবারের সদস্যরাও রানির রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্যে উপস্থিত থাকবেন। মোট রাষ্ট্রীয় অতিথির সংখ্যা দুই হাজার।

চীনের পক্ষে লন্ডনে যাবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট ওয়াং কিশান। ইরান, উত্তর কোরিয়া ও নিকারাগুয়ার রাষ্ট্র বা সরকারপ্রধানদের পরিবর্তে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে কেবল রাষ্ট্রদূতদের। আর রাশিয়া, বেলারুশ, মিয়ানমার, সিরিয়া, ভেনিজুয়েলা ও আফগানিস্তানের কোনো প্রতিনিধিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে যুক্তরাজ্যের সম্পর্কে প্রকাশ্য তিক্ততার সৃষ্টি হয়েছে। বেলারুশ পুতিনের রাশিয়ার ঘনিষ্ঠ মিত্র। জান্তাশাসিত মিয়ানমার সম্প্রতি সাবেক ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকে করেছে কারারুদ্ধ।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গতকালই ওয়েস্টমিনস্টার হলে গিয়ে রানির প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর ল্যাংকাস্টার হাউসে শোক বইয়ে স্বাক্ষর করেন তিনি।

রানির শেষকৃত্যে থাকবেন না সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। সৌদি কর্তৃপক্ষই তাঁর সফর বাতিল করেছে। সালমানকে রানির শেষকৃত্যে আমন্ত্রণ করায় নিন্দা জানিয়েছিলো মানবাধিকার সংগঠনগুলো। ২০১৮ সালে ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার অভিযোগ আছে সালমানের বিরুদ্ধে, যদিও তিনি তা জোরের সঙ্গে অস্বীকার করেছেন।

অনেক বিদেশি অতিথি আজ ওয়েস্টমিনস্টার হলের শেষকৃত্যে রানির প্রতি শ্রদ্ধা জানাবেন এবং ল্যাংকাস্টার হাউসে রাখা শোক বইয়ে স্বাক্ষর করবেন। তবে গতকাল রবিবারের প্রধান অনুষ্ঠান ছিলো রাজা তৃতীয় চার্লস আয়োজিত রাষ্ট্রীয় সংবর্ধনা। এতে যোগ দেওয়ার কথা রাষ্ট্রপ্রধানদের। এ অনুষ্ঠান অনেক নেতার জন্য রানির অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া উপলক্ষে লন্ডনে আসা সবার সঙ্গে দেখা করার একমাত্র সুযোগ হতে পারে।

এদিকে ওয়েস্টমিনস্টারে রানির প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর সারিতে নতুন করে কাউকে না দাঁড়ানোর কথা বলা হয় গতকাল দুপুরের দিকে। হতাশ হয়ে ফিরতে হতে পারে এমন, আশঙ্কা থেকে এই সতর্কবার্তা জারি করা হয়। রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্য শুরুর সাড়ে চার ঘণ্টা আগে স্থানীয় সময় সোমবার সকাল সাড়ে ৬টায় সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর শেষ সময় নির্ধারণ করা হয়েছে।

ওয়েস্টমিনস্টার হলে প্রবেশের আগে সবাইকে অপেক্ষার সময় ব্যবহৃত কম্বল ও খাবার রেখে যেতে হচ্ছে। সে কম্বল দ্রুত পরিষ্কার করে নতুন করে লাইনে দাঁড়ানো মানুষকে দেয়া হচ্ছে। কোনো খাবার খাওয়া না হলে তা দান করা হচ্ছে। প্রতিটি বিষয়েই পূর্বপ্রস্তুতি নিয়েছিল সরকার।

আজকের রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্য উপলক্ষে লন্ডনের বিভিন্ন সড়ক বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। স্থানীয় সময় ভোর ৫টা থেকেই এসব সড়ক বন্ধ করা হবে। নিরাপত্তা রক্ষায় বিভিন্ন সংস্থার হাজার হাজার কর্মী মোতায়েন করা হয়েছে। শেষকৃত্যে যোগ দিতে বিশেষ বাসে চড়ে ওয়েস্টমিনস্টার অ্যাবেতে যাবেন বিশ্বনেতারা। একসঙ্গে বিপুলসংখ্যক নেতার নিরাপত্তা বজায় রাখা নিশ্চিত করার জন্য এটি করার কথা আগেই জানিয়েছিলো যুক্তরাজ্য সরকার। বিশেষ নিরাপত্তাগত উদ্বেগের জন্য নিজের গাড়িতে করে যাওয়ার অনুমতি পেয়েছেন কেবল যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও ইসরায়েলের রাষ্ট্রপ্রধানরা।

ওয়েস্টমিনস্টার হল থেকে শোকযাত্রার মাধ্যমে রানির কফিন ওয়েলিংটন আর্চে নেয়া হবে। শোকযাত্রার নিরাপত্তার জন্য সড়কের পাশে ব্যারিকেড বসানো হয়েছে। সড়কের পাশে এরই মধ্যে অবস্থান নিতে শুরু করেছে মানুষজন। ওয়েলিংটন আর্চ থেকে কফিন যাবে উইন্ডসর ক্যাসলের সেন্ট জর্জ চ্যাপেলে। এখানেই মা, বাবা ও স্বামীর সমাধির পাশে সমাহিত হবেন রানি।

সূত্র: বিবিসি

স্বাআলো/এসএস

.

Author
আন্তর্জাতিক ডেস্ক