বাগেরহাটে নিখোঁজের ২ বছর পর যুবকের কঙ্কাল উদ্ধার

রাজনৈতিক, গ্রাম্য কোন্দল ও মাদকসহ ধারাবাহিক অপরাধ কর্মকাণ্ডে আলোচিত বাগেরহাটের মোল্লাহাট উপজেলায় নিখোঁজের দুই বছর পর রানা শরীফ (২৩) নামের এক যুবকের বস্তাবন্দি কঙ্কাল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে উপজেলার শাসন গ্রামের একটি বাঁশ বাগানের মধ্য থেকে এ কংকাল উদ্ধার করা হয়।

নিহত রানা শরীফ ওই গ্রামের শরীফ আহম্মেদ ওরফে বাচ্চু শরীফের ছেলে। দুই বছর আগে সে নিখোঁজ হয়। তাকে হত্যার পর বস্তাবন্দী করে ওই বাশবাগানে পুতে রাখা হয়েছিলো বলে পুলিশ জানান।

মোল্লাহাট থানার ওসি সোমেন দাশ বৃহস্পতিবার বিকেলে জানান, ২০২০ সালের ২০ সেপ্টেম্বর রানা শরীফ নিখোঁজ হন। এ ঘটনায় রানার পিতা মোল্লাহাট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। ওই ডায়েরির সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় অনুসন্ধানে শাসন গ্রামের এনামুল ফকিরের ছেলে রুহুল আমিন ফকির (২২) ও হেদায়েত চৌধুরীর ছেলে শহিদুল চৌধুরীকে (৩০) গত বুধবার আটক করা হয়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে রুহুল আমিন ও শহিদুল চৌধুরী প্রাথমিকভাবে জানায়, তারা মোট পাঁচজনে মিলে একই গ্রামের মিরাজ চৌধুরীর বাড়িতে রানাকে হত্যার পর লাশ বস্তাবন্দী করে। এরপর ওই এলাকার নির্জন একটি বাঁশ বাগানে পুতে রাখে। পরে রুহুল আমিন ও শহিদুলকে সঙ্গে নিয়ে তাদের দেখানো স্থানে ওই গ্রামের জনৈক আসাদ শেখের বাঁশ বাগানে মাটি খুঁড়ে বস্তাবন্দী অবস্থায় রানা শরীফের কঙ্কাল উদ্ধার করা হয়। জঘন্যতম এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জিডির বরাতে এখন হত্যা মামলা রেকর্ড হবে। বাকী আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। উদ্ধার হওয়া কঙ্কালের মেডিকেল পরীক্ষা করা হবে।

এদিকে নিহত রানা শরীফের পিতা শরীফ আহম্মেদ বাচ্চু জানান, আমার ছেলের কাছে থাকা টাকা ছিনিয়ে নিয়ে নির্মমভাবে হত্যার পর লাশ গুম করে রাখে খুনিরা। আমি আমার ছেলের খুনিদের ফাঁসি চাই।

স্বাআলো/এসএস

.

Author
আজাদুল হক, বাগেরহাট
জেলা প্রতিনিধি