নড়াইলে ড্রেন থেকে বীরমুক্তিযোদ্ধার মরদেহ উদ্ধার

নড়াইলের কালিয়া উপজেলার গন্ধবাড়িয়া গ্রামের ওয়াপদার (বেড়িবাঁধ) ড্রেন থেকে বীরমুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু তালেবের (৭৫) মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) সকালে নড়াগাতি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকান্ত সাহা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে বুধবার (১৬ নভেম্বর) রাত সাড়ে ১১টায় ওই ড্রেন থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত ব্যক্তি হলেন- উপজেলার নড়াগাতি থানাধীন মাউলি ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের মৃত মোজাম শেখের ছেলে শেখ আবু তালেবের (৭৫)। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে বীরমুক্তিযোদ্ধা আবু তালেব প্রতিদিনের মতো সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে বের হন। দীর্ঘ সময় বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের সদস্যরা ও স্থানীয়রা খোঁজাখুঁজি করে। একই সঙ্গে মসজিদের মাইকে তার নিখোঁজের বিষয়টি ঘোষণা দেন। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে তার বাড়ি থেকে আধা কিলোমিটার দূরে ওই ড্রেনে একটি মরদেহ দেখতে পান। এ সময় পুলিশকে খবর দিলে তার মরদেহ উদ্ধার করেন।

মাউলি ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য আশরাফুল আলম জানান, গত ১৪ নভেম্বর ইসলামপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের নির্বাচন হয়। এই নির্বাচনে একটি প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী ছিলেন বীরমুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু তালেব। অন্য প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী ছিলেন তবিবুর রহমান মণ্ডল। ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের নির্বাচনে আবু তালেবের প্যানেল জয় লাভ করে। এ নিয়ে নির্বাচনের দিন একটু বিশৃঙ্খলা হয়।

তিনি আরো বলেন, বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) মাদরাসার পূর্নাঙ্গ ম্যানেজিং কমিটির গঠন করার শেষ দিন। তিনি পূর্বে মাদরাসার এডহক কমিটির সভাপতি ছিলেন। এই নির্বাচনে তার প্যানেল জয়লাভ করায় তিনিই আবার সভাপতি হতেন। বীরমুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু তালেব আবারও যাতে সভাপতি হতে না পারেন, প্রতিপক্ষ প্যানেলের লোকজন শত্রুতার কারণে তাকে হত্যা করে থাকতে পারে।

নড়াগাতি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকান্ত সাহা জানান, বুধবার রাতে সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে বীরমুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু তালেবের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরো জানান, প্রাথমিকভাবে হত্যা নাকি স্বাভাবিক মৃত্যু কিছুই বলা যাচ্ছে না। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। বিশৃঙ্খলা এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

স্বাআলো/এস

.

Author
সুজয় বকসী, নড়াইল