কোচিং সেন্টার থেকে ছাত্রীকে তুলে নেয়ার চেষ্টা, যুবক আটক

বাগেরহাট সদর উপজেলার গোটাপাড়া স্কুলের সামনের একটি কোচিং সেন্টার থেকে পঞ্চম শ্রেণির একজন ছাত্রীকে জোর করে তুলে নেয়ার চেষ্টাকালে জনতার সহায়তায় জনি শেখ (২০) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ঘটনায় শনিবার রাতেই মেয়েটির পিতা বাদী হয়ে বাগেরহাট সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেছেন।

গ্রেফতার জনি সেখ গোটাপাড়া গ্রামের জেনাব আলী সেখের ছেলে। পুলিশ রবিবার সকালে জনি শেখকে আদালতে প্রেরণ করেছে।

ঘটনা বিষয়ে প্রর্ত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জনি সেখ শনিবার বিকেলে গোটাপাড়া স্কুলের সামনে একটি কোচিং সেন্টারে প্রবেশ করে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওই মেয়েটিকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যেতে চেষ্টা করে। এ সময় কোচিং সেন্টারের শিক্ষক সুমন তা প্রতিরোধ করে। দ্বিতীয় দফায় সে আবারো কোচিং সেন্টারের সামনে অবস্থান নিয়ে অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। এক পর্যায়ে স্থানীয়রা জনি শেখকে আটক করে উত্তম-মাধ্যম দিয়ে বেধে রাখে।

পরে এলাকার ইউপি মেম্বর টুটুল কাজী এসে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বাগেরহাট সদর মডেল থানা পুলিশ জানায়।

পরে থানা পুলিশ জনি শেখকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে।

এলাকাবাসীরা অভিযোগ করে বলেন, জনি শেখ নিয়মিত মাদক সেবন করে তার বখাটে সহযোগীদের নিয়ে প্রায়ই স্কুলগামী মেয়েদের উত্ত্যক্ত করে আসছে। হিন্দু সম্প্রদায় অধ্যুষিত ওই এলাকার অনেকে ভয়ে এ চিহ্নিত বখাটেদের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করেন না।

এসব বখাটেদের কারণে গোটাপাড়া স্কুলের অনেক শিক্ষার্থী লেখা-পড়া বন্ধ হয়ে গেছে বলে একাধিক ব্যক্তি মন্তব্য করেছেন।

এ বিষয়ে বাগেরহাট সদর মডেল থানার দায়িত্ব প্রাপ্ত ওসি মহসীন রবিবার সকালে জানান, কোচিং সেন্টারে মেয়েকে উত্তাক্তের ঘটনায় এলাকাবাসীর সহায়তায় জনি শেখ নামের এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে শনিবার রাতেই একটি মামলা করেছেন।

স্বাআলো/এস

.

Author
আজাদুল হক, বাগেরহাট
জেলা প্রতিনিধি