যশোর স্টেডিয়ামে নৌকার আদলে মঞ্চ

বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) যশোর স্টেডিয়ামে সমাবেশে বক্তব্য দেবেন। সমাবেশস্থলে ইতোমধ্যে নৌকার আদলে সভামঞ্চ প্রস্তুত সম্পন্ন হয়েছে। নৌকার আদলে নির্মিত মঞ্চের দৈর্ঘ্য ১২০ ফুট ও প্রস্থ ৪০ ফুট। মূল মঞ্চ করা হয়েছে ৮০ ফুট বাই ৪০ ফুট। মঞ্চের পেছনে ৭৬ ফুট বাই ১০ ফুট ব্যানার টাঙানো হয়েছে।

বুধবার (২৩ নভেম্বর) সমাবেশ স্থলে প্রেসবিফ্রিং করে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর জনসভা ঘিরে যশোরের নারী, পুরুষ, বৃদ্ধ বণিতাদের মধ্যে যে উৎসবে সৃষ্টি হয়েছে তাতে খুব ভোরেই স্টেডিয়াম পরিপূর্ণ হয়ে যাবে। আমরা আশা করছি পুরো যশোর শহর সমাবেশ স্থলের রূপ নেবে। ১০ লক্ষাধিক মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেখতে তার কথা শুনতে সমাবেশে আসবেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জঙ্গিরা এখনো তৎপর রয়েছে। আদালত থেকে জঙ্গিদের ছিনিয়ে নেয়া হচ্ছে। সবকিছু মাথায় রেখে নেত্রীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অনেক কিছুই করা হয়েছে।

এদিকে, জনসভাকে জনসমুদ্রের রূপ নিতে দিনরাত কাজ করছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। তৃণমূল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর আগমন বার্তা পৌঁছে দিতে তৎপরতা চালানো হচ্ছে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত মাইকিং করা হচ্ছে। সুসজ্জিতভাবে নেতাকর্মীরা এই সমাবেশে অংশ নেবেন।

যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ বলেছেন, যশোর জেলা স্টেডিয়ামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই জনসভা স্মরণকালের সবচেয়ে বড় জনসমাবেশ হবে। এই সমাবেশে আসতে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা মুখিয়ে আছেন। বিএনপি জামাতের আগামীদিনের তাণ্ডব রুখতে এই সমাবেশ থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী মানুষ শপথ নিয়ে ঘরে ফিরবেন।

এদিকে, জনসভাকে ঘিরে পুরো যশোরকে ব্যাপক নিরাপত্তা চাদরে মুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্য ছাড়াও তৎপর রয়েছে বিভিন্ন সংস্থা। যশোর জেলা স্টেডিয়ামের মূল মঞ্চ ঘিরে নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এছাড়া পুরো যশোর জেলার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালের ২৬ ডিসেম্বর যশোর স্টেডিয়ামে ভাষণ দিয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বৃহস্পতিবার সেই মাঠে ভাষণ দেবেন বঙ্গবন্ধু কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর