জামায়াত ছাড়া বিএনপির টিকে থাকাই দুষ্কর: ওবায়দুল কাদের

ফাইল ছবি

নেতিবাচক রাজনীতি করতে করতে বিএনপি যেখানে পৌঁছেছে, এখন তাদের বড় সমাবেশ, বড় মিছিল করতে হলে জামায়াতকে দরকার মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা কর্মসূচি দিতে পারে, তাদের দফা আছে। ১০ দফা, আবার বলে ১ দফা। দেখলাম ২৩ দল, আবার ৫৪ দল। তাদের ঐক্যের পরিণতি আমরা গত নির্বাচনে দেখেছি। অতি বাম, অতি ডান, সব মিলে মিশে একাকার।

বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারী) দুপুরে সচিবালয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, গতকাল সমাবেশ দেখলাম। সমাবেশ অবশ্যই বড় হয়েছে, অস্বীকার করে লাভ নেই। তাদের জগাখিচুড়ি ঐক্য অর্থহীন। এ ঐক্য কতখানি টেকসই সেটা সময় বলে দেবে। গতবারও তাদের ২১ দল ছিলো। পরে দেখা গেলো, নির্বাচনের সময় সব এদিক-সেদিক হয়ে গেলো। পরবর্তী নির্বাচনে আমাদের নেতৃত্ব আছে। তাদের কে? তারা কখনও বলে বেগম জিয়া, কখনও বলে তারেক রহমান কিন্তু এ দুইজনের কারোই তো নির্বাচন করার যোগ্যতা নেই। তারা দুইজনই সাজাপ্রাপ্ত।

আওয়ামী লীগ রাজপথে আছে মন্তব্য করে কাদের বলেন, আমরা রাজপথ ছাড়বো না। রাষ্ট্রক্ষমতায় আমরা আছি। দেশের জনগণের জানমাল রক্ষার দায়িত্ব আমাদের। আমরা সতর্ক অবস্থানে থাকবো। আমরা শান্তি সমাবেশ, শান্তির শোভাযাত্রা করবো। তারা শোভাযাত্রা করলে আমরা শান্তির শোভাযাত্রা করবো। আমরা বিক্ষোভ মিছিল করবো, সরকারি দল- এটা হতে পারে না। আমাদের বিক্ষোভের কোনো কারণ নেই।

এক প্রশ্নের জবাবে কাদের বলেন, জামায়াত ছাড়া তাদের (বিএনপি) টিকে থাকাই দুষ্কর। নেতিবাচক রাজনীতি করতে করতে বিএনপি যেখানে গিয়ে পৌঁছেছে, এখন তাদের বড় সমাবেশ, বড় মিছিল করতে হলে জামায়াতকে দরকার। জামায়াতের কর্মী-সমর্থক ব্যাংক আছে। কাজেই সমাবেশ বড় করতে হলে, মিছিলে লোক বেশি আনতে হলে জামায়াত ছাড়া তাদের চলবে না। সাম্প্রদায়িক শক্তির পৃষ্ঠপোষক হচ্ছে বিএনপি। জঙ্গিবাদী শক্তি, সাম্প্রদায়িক শক্তির বিশ্বস্ত ঠিকানা বিএনপি। বিএনপি আর জামায়াত একই মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। একটাকে ছাড়া আরেকটা চলবে না।

জামায়াত নিষিদ্ধের জন্য আওয়ামী লীগ আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন সংশোধনের প্রস্তাব দিয়েছিল। সেখান থেকে সরে আসার কারণ কী জানতে চাই কাদের বলেন, যেহেতু এটা গণসমঝোতা না, বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। সেহেতু ভিন্ন উদ্যোগ নেয়া যুক্তিসঙ্গত নয়।

আগামী ২২তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে আপনার নাম শোনা যাচ্ছে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী, গণমাধ্যমকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমার ওই পদের যোগ্যতা নেই। আমাদের সভাপতি নিশ্চয়ই আলাপ-আলোচনা করছেন, খোঁজখবর নিচ্ছেন। তার মাথায় কারো নাম থাকতেও পারে। সেটা তিনি এখনো বলেননি।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
ঢাকা অফিস