এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে সরিষার চাষ

লালমনিরহাটে চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে। গত বছর সরিষার আবাদ হয়েছিলো ১৯০০ হেক্টর জমিতে। চলতি বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে প্রায় দেড় গুণ বেশি জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে।

স্বল্প খরচে ও অল্প সময়ে সরিষার ভালো ফলন পাওয়া যায়। পূর্বের তুলনায় বর্তমানে বাজারে সরিষার দামও ভালো যায়। সে কারণে কৃষকেরা বোরো ধান চাষের আগে সরিষা চাষের দিকে ঝুঁকছেন।

জেলার সদর, আদিতমারী ও কালীগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়ন গুলোর বিভিন্ন গ্রামের মাঠে দেখা মিলছে হলুদের রংয়ের সরিষা ক্ষেতের ঢেউ। গ্রামের মানুষ এক সময় সরিষার চাষ বেশি করতেন। কারণ তারা নিজেদের ঘানিতে সরিষা থেকে তৈল উৎপাদন করতেন। সরিষার তেলের বিকল্প হিসেবে বর্তমানে সয়াবিন তেলের প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় সরিষার চাষ অনেকটা কমে গেছে। কিন্তু এখন বোরো আবাদের আগে অল্প সময়ে, অল্প পুঁজিতে সরিষা চাষ করলে বাড়তি কিছু আয় হওয়ার সুবাধে সরিষার চাষ আবারো বাড়ছে।

কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা ইউনিয়নের চাষি, রফিকুল ইসলাম, এরশাদ ও ফজলু জানান, ‘চলতি বছরের নভেম্বর মাসে তারা সরিষার বীজ বপন করেছেন। ঘরে ফসল তুলতে সময় লাগবে ৭০ থেকে ৯০ দিন। অল্প খরচে কম সময়ে ফসল ঘরে তোলার স্বপ্ন দেখছেন। বর্তমানে সরিষার ক্ষেতে হলদে ফুল দেখে তারা খুব খুশি।

এই বিষয়ে লালমনিরহাট জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক জনাব হামিদুর রহমান জানান, চলতি বছর সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৫৭৫ হেক্টর জমি আর আবাদ হয়েছে ২৬৪০ হেক্টর জমিতে। তাদের পক্ষ থেকে সরিষার আবাদ বাড়াতে এবং সোয়াবিন তেলের প্রভাব কমাতে সাধারণ কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করছেন।

স্বাআল/এসএস

.

Author
জেলা প্রতিনিধি, লালমনিরহাট