জাতীয় গ্রিডে বিপর্যয়, অন্ধকারে ডুবলো গোটা পাকিস্তান

অন্ধকারে ডুবে গেলো গোটা পাকিস্তান। রাজধানী ইসলামাবাদ থেকে শুরু করে লাহোর বা করাচি। দেশটির প্রায় সব বড় শহরই বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। বালুচিস্তানের কোয়েটা থেকে গুড্ডুর মধ্যে হাই-টেনশন ট্রান্সমিশন লাইনে প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে।

পাকিস্তানের বিদ্যুৎ দফতর সোমবার এক বিবৃতিতে বলেছে, স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ৩৪ মিনিটে জাতীয় গ্রিডে প্রযুক্তিগত ত্রুটির খবর পাওয়া গেছে। এর জেরে ব্যাহত হয়েছে বিদ্যুৎ পরিষেবা। দ্রুত পরিষেবা স্বাভাবিক করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

এক খবরে ডন জানিয়েছে, প্রযুক্তিগত ত্রুটির প্রভাব পড়েছে ইসলামাবাদের ১১৭টি গ্রিড স্টেশনে। পরিষেবা পুরোপুরি স্বাভাবিক হতে ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় লাগতে পারে।

খবরে বলা হয়েছে, বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের প্রভাব পড়েছে মেট্রো পরিষেবায়। বিদ্যুৎ নেই রাওয়ালপিণ্ডি, মুলতান ও বালুচিস্তানের ২২টি জেলায়। এছাড়াও সিন্ধু ও আফগানিস্তান সীমান্ত লাগোয়া খাইবার পাখতুনখোয়াতেও বিদ্যুৎ বিভ্রাট হয়েছে।

বিদ্যুৎ বিভ্রাটের ঘটনায় শাহবাজ শরিফ সরকারকে নিশানা করেছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পিটিআই। এক বিবৃতিতে পিটিআই এর মুখপাত্র বলেন, সরকারের অপদার্থতার জেরেই বিদ্যুৎ সংকটে ভুগতে হচ্ছে পাকিস্তানকে। এই অবস্থা চলতে থাকলে শ্রীলঙ্কার মতো দেউলিয়া পরিস্থিতি তৈরি হবে দেশে। পরিস্থিতি বদলাতে পারেন একমাত্র ইমরান খানই।

সম্প্রতি আর্থিক সংকট বৃদ্ধি পাওয়ায় বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে পাকিস্তান সরকার। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, এখন থেকে বাজার ও শপিং মলগুলোকে রাত সাড়ে ৮টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে। রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা রাখা যাবে বিয়েবাড়ি ও রেস্তরাঁ। ফেব্রুয়ারি থেকে পরবর্তী এক মাস বৈদুতিক বাল্ব উৎপাদন বন্ধ রাখবে পাকিস্তান। কমানো হবে রাস্তার আলোর সংখ্যা। এছাড়াও বিদ্যুতের খরচ কমাতে সরকারি দফতরগুলিতে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের ব্যবহারে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

স্বাআলো/এসএ

.

Author
আন্তর্জাতিক ডেস্ক