আজ বুধবার ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং ৮ ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ বসন্তকাল ১৪ জমাদিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম :
বন্দুকযুদ্ধে’ ছিনতাইকারী গুলিবিদ্ধ আজও বার্সেলোনা ড্র করেছে আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী শুরুতেই তিন উইকেট হারাল বাংলাদেশ ঢাকায় অস্ট্রেয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ৩৩১ রানের টার্গেটে ব্যাট করছে বাংলাদেশ ২০ ফেব্রুয়ারি দিনটি কেমন যাবে ইতিহাস ঐতিহ্যে ভরপুর ঝিনাইদাহের বারোবাজার ইউসিবিএল ব্যাংকের ম্যানেজারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রাজ্জাকের পদত্যাগকে স্বাগত জানালেন ড. কামাল ৩১ শিশুর দেহাবশেষ উদ্ধারের ঘটনায় দুই ডাক্তার বরখাস্ত মণিরামপুরে ভাইয়ের হাতে বোন খুন জেনে নিন, আনারস আর দুধ একসাথে খেলে কি হয় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ১৬টি অঙ্গরাজ্যের মামলা সড়ক দুর্ঘটনায় ডিশ ব্যবসায়ী নিহত নদী আর গহীন অরণ্যের মাঝে ঘুরে আসুন সুন্দরবন চুয়াডাঙ্গায় সোলার লাইট স্থাপন কার্যক্রম উদ্বোধন পুলিশ হেফাজতে সালমান মুক্তাদির জিজ্ঞাসাবাদ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞানের ২০ শতাংশ অগ্রাধিকার নকলের সুযোগ না দেয়ায় শিক্ষিকাকে জুতাপেটা স্মার্ট কার্ড পেয়েছেন, জেনে নিন কি কি সুবিধা পাবেন চৌগাছায় আ.লীগ নেতা হত্যায় ১৭ জনের নামে মামলা মুক্তির অপেক্ষায় ‘বিউটি সার্কাস’: জয়া ও ফেরদৌস ১৫ মার্চ থেকে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা শুরু কাশিয়ানীতে কোচিং সেন্টারে অভিযান: পোড়ানো  হলো বেঞ্চ

রক্ত পরীক্ষায় ঠেকাবে থ্যালাসেমিয়া

রক্ত পরীক্ষায় ঠেকাবে থ্যালাসেমিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা: মরণব্যাধি থ্যালাসেমিয়া থেকে বাঁচতে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি বিয়ের আগে বর-কনের রক্ত পরীক্ষা করাতে মত দিয়েছেন দেশি-বিদেশী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। বিয়ের আগে এ রোগের বাহকদের শনাক্ত করা গেলে অর্থাৎ দুজন থ্যালাসেমিয়া বাহক একে অন্যকে বিয়ে না করলে কোনো শিশুই এ রোগ নিয়ে জন্মগ্রহণ করবে না।বৃহস্পতিবার রাজধানীর বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ান্স (বিসিপিএস) অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত চারদিন ব্যাপী ‘আন্তর্জাতিক থ্যালাসেমিয়া কর্মশালা-২০১৯’ এর সমাপনী দিনে বক্তারা এসব কথা বলেন।থ্যালাসেমিয়া বংশগত রক্তস্বল্পতাজনিত একটি রোগ। দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১০ ভাগ অর্থাৎ প্রায় দেড় কোটি নারী-পুরুষ নিজের অজান্তে থ্যালাসেমিয়া রোগের বাহক। বাংলাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৮ থেকে ১০ হাজার শিশু থ্যালাসেমিয়া রোগ নিয়ে জন্মায়। ব্যয়বহুল হওয়ায় এ রোগের চিকিৎসা থেকেও বঞ্চিত হন অনেকে।

কর্মশালায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘থ্যালাসেমিয়া আমাদের সমাজের জন্য একটা  বোঝা। এটি নন কমিউনিকেবল ডিজিজ। জিনগত এই রোগটির বর্তমানে আমাদের দেশের প্রায় দশ ভাগ শিশু বহন করছে। যে শিশুগুলো এই বাহক বয়ে বেড়াচ্ছে সেটা কিন্তু তারা ইচ্ছে করে করেনি। তাদের বাবা-মা একই বাহক বহন করায় তাদের এই রোগে পড়তে হয়েছে।’

‘দেশে থ্যালাসেমিয়া যেন বিস্তৃতি না পায় সে জন্য সচেতনতা ছড়িয়ে দেবে সরকার। আমরা নিরাপদ রক্ত সঞ্চালন করার মাধ্যমে থ্যালাসেমিয়াকে নিয়ন্ত্রন করে সমাজকে মুক্তি দেব।’এনএইচ ফাউন্ডেশন প্রফেসর এন ডাল্টন বলেন, ‘বাংলাদেশ বিভিন্ন সেক্টরে বেশ উন্নতি সাধন করছে। বিশেষ করে স্বাস্থ্য খাতে আগের চেয়ে অনেক এগিয়ে গেছে। মরণব্যাধি থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধ করা বাংলাদেশের জন্য বিশেষ গুরত্বের। কারণ এটা প্রতিরোধ না করা গেলে অর্থনৈতিকভাবে বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্থ হবে। তাছাড়া থ্যালাসেমিয়া রোগের চিকিৎসা খুব ব্যয়বহুল। তাই এটা প্রতিরোধ করতে হলে এখনই মানুষকে সচেতন করে তুলতে হবে। এই চ্যালেঞ্জটা বাংলাদেশের প্রত্যেক নাগরিকদের নিতে হবে।’

 

কলকাতা ইনস্টিটিউট অফ মোটোলজি এন্ড ট্রান্সফিউশন মেডিসিন মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক মৈত্রীয়া ভট্রাচার্য বলেন, ‘থ্যালাসেমিয়া আমাদের সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করে। এই সমস্যার সমাধান করতে হলে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। কারণ সাইপ্রাস বা গ্রিসের মত আইন করে উপমহাদেশে এটার সমাধান সম্ভব নয়। সামাজিকভাবে সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি সরকারের উচিত থ্যালাসেমিয়া বাহক আছে কি না সেটা পরীক্ষা করা এবং তার ফ্রি চিকিৎসা দেওয়া।’

আরো পড়ুন>>> বিয়ের চাপ দেয়ায় প্রেমিকাকে খুন

ইন্টারন্যাশনাল থ্যালাসেমিয়া ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধি পল টেলফার বলেন, ‘আমি যুক্তরাজ্যে নন কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম থ্যালাসেমিয়া নিয়ে কাজ করি। এই রোগ থেকে একটা দেশকে মুক্ত করতে হলে সবাইকে দায়িত্ব নিতে হবে।’

‘বিশেষ করে থ্যালাসেমিয়া নিয়ে মানুষের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে। সবাইকে এটার অপকারী দিকগুলো তুলে ধরতে হবে। সামাজিক ও শিক্ষামূলক সচেতনা অর্থাৎ পরিবার থেকে এটার সচেতনতা শুরু করতে হবে। এটার জন্য এখনই পরিকল্পনা করে এগোতে হবে যেন ভবিষ্যতে এটা আর না হয়।’

 

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের লাইন ডিরেক্টর (এনসিডিসি) নূর মোহাম্মদ বলেন, ‘আমাদের দেশে থ্যালাসেমিয়া রোগীর সংখ্যা দিনে দিনে বেড়ে যাচ্ছে। কিন্তু সেই অর্থে চিকিৎসা হচ্ছে সীমিত আকারে। তাই এ রোগ যেন না হয় সেজন্য সকলকে সচেতন করে তুলতে হবে। এজন্য বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষা করে দেখে নিতে হবে থ্যালাসেমিয়ার বাহক আছে কিনা।’

স্বাআলো/এসএ