আজ বুধবার ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং ৮ ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ বসন্তকাল ১৪ জমাদিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী
শিরোনাম :
বন্দুকযুদ্ধে’ ছিনতাইকারী গুলিবিদ্ধ আজও বার্সেলোনা ড্র করেছে আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী শুরুতেই তিন উইকেট হারাল বাংলাদেশ ঢাকায় অস্ট্রেয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ৩৩১ রানের টার্গেটে ব্যাট করছে বাংলাদেশ ২০ ফেব্রুয়ারি দিনটি কেমন যাবে ইতিহাস ঐতিহ্যে ভরপুর ঝিনাইদাহের বারোবাজার ইউসিবিএল ব্যাংকের ম্যানেজারের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রাজ্জাকের পদত্যাগকে স্বাগত জানালেন ড. কামাল ৩১ শিশুর দেহাবশেষ উদ্ধারের ঘটনায় দুই ডাক্তার বরখাস্ত মণিরামপুরে ভাইয়ের হাতে বোন খুন জেনে নিন, আনারস আর দুধ একসাথে খেলে কি হয় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ১৬টি অঙ্গরাজ্যের মামলা সড়ক দুর্ঘটনায় ডিশ ব্যবসায়ী নিহত নদী আর গহীন অরণ্যের মাঝে ঘুরে আসুন সুন্দরবন চুয়াডাঙ্গায় সোলার লাইট স্থাপন কার্যক্রম উদ্বোধন পুলিশ হেফাজতে সালমান মুক্তাদির জিজ্ঞাসাবাদ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগে বিজ্ঞানের ২০ শতাংশ অগ্রাধিকার নকলের সুযোগ না দেয়ায় শিক্ষিকাকে জুতাপেটা স্মার্ট কার্ড পেয়েছেন, জেনে নিন কি কি সুবিধা পাবেন চৌগাছায় আ.লীগ নেতা হত্যায় ১৭ জনের নামে মামলা মুক্তির অপেক্ষায় ‘বিউটি সার্কাস’: জয়া ও ফেরদৌস ১৫ মার্চ থেকে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা শুরু কাশিয়ানীতে কোচিং সেন্টারে অভিযান: পোড়ানো  হলো বেঞ্চ

শহীদ মিনার শূন্য বরগুনার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

শহীদ মিনার

জেলা প্রতিনিধি, বরগুনা : যাদের আত্মত্যাগের বিনিময় আজ বাঙ্গালী মায়ের ভাষায় কথা বলে। তাদের ঋন কোন দিন শোধ করা যাবেনা। তাদের স্মরণে বাঙ্গালীরা প্রতি বছর পালন করে ২১ ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। কিন্তু বরগুনা জেলার আমতলী ও তালতলী উপজেলার ৩৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন শহীদ মিনার নেই। সব মিলিয়ে মাত্র ৫ টি শহীদ মিনার রয়েছে আমতলী ও তালতলীতে। শিক্ষার্থীরা অস্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করে দিবসগুলো পালন করছে।

শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাগেছে, দু’উপজেলায় ৩৩৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে আমতলী ১৫৯ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৩৮ টি মাধ্যমিক, ২৯ টি মাদ্রাসা ও ৫ টি কলেজ এবং তালতলীতে ৭৪ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৬ টি মাধ্যমিক, ১২ টি মাদ্রাসা ও ২ টি কলেজে শহীদ মিনার নেই।

ভাষা আন্দোলনের বহু বছর অতিক্রান্ত হলেও সরকারি কিংবা প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে আজ পর্যন্ত আমতলী ও তালতলী উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে কোনো শহীদ মিনার গড়ে ওঠেনি। শিক্ষার্থীরা কলাগাছ ও বাঁশ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করে সেখানে পুষ্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে বিভিন্ন দিবস পালন করছে।

আমতলী এম.ই. মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসির উদ্দিন জানান, ‘সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হলে কোমলমতি শিশু শিক্ষার্থীরা ভাষা আন্দোলনের ব্যাপারে জানতে আরও আগ্রহ প্রকাশ করবে। শহীদ মিনার না থাকায় শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকরা এ দিবস সম্পর্কে তেমন একটা গুরুত্ব দেন না।’

আরো পড়িুন >>>গৌরীপুরে ভিসা ব্যবসায়ী সৌদি নাগরিকের লাশ উদ্ধার

আমতলী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আকমল হোসেন জানান, ‘শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের কৌশল অধিদপ্তরে তালিকা পাঠিয়েছি কিন্তু এখনো কোন সারা পাইনি।’

স্বাআলো/এইসএম